কালিদাসের মেঘদূত শ্লোক ০৪৯-০৫২ (পূর্ব মেঘ) – অনুবাদ নরেন্দ্র দেব

৪৯
বন্ধু-প্রীতির মর্যাদা রাখি যুদ্ধ-বিরত রাম
সরস্বতীর তীরে বসি যেথা’ করি’ছেন বিশ্রাম,
রেবতী-লোচন-সন্নিভ সুরা-আস্বাদ সুমধুর–
ত্যাজি অনায়াসে নদীজলে তিনি তৃষ্ণা করেন দূর।
সেই পূতবারি করো গিয়ে পান, তোমারও হবেই ভালো,
পাবে নির্মল শুদ্ধ চিত্ত-হ’লেও বরণ কালো।
৫০
কুরুক্ষেত্র পশ্চাতে রাখি এসো তুমি কনখলে,
শৈল ত্যজিয়া গঙ্গা যেথায় নেমে এলকুতূহলে;
সগরসুতের উদ্ধারে রচি’ স্বর্গ সোপানাবলী,
হরজটাজাল দু’হাত টানিয়া আনন্দে যায় গলি’!
টলে ওঠে চাঁদ শম্ভু ললাটে, গঙ্গা অট্‌টহাসে
তুচ্ছ করিয়া উমার ভ্রুকুটি নাচিছে কলোচ্ছ্বাসে।
৫১
সুর-গজবেশে গগন হইতে প্রলম্বি’ যদি তুমি
পান করো সেই স্ফটিক প্রবাহ পরশি’ পার্শ্বভূমি,
প্রতিবিম্বিত হবে তুমি তাহে, ভাবিবে সবাই ভ্রমে,
গঙ্গা যমুনা মিলিছে এ কোন অভিনব সঙ্গমে!
৫২
তুষারশুভ্র গিরিশিলা যেথা মৃগনাভি সুরভিত,
সেথায় ক্ষণেক বিশ্রাম নিলে জানি তুমি হবে প্রীত।
হেরিয়া তোমারে মনে হবে যেন-শম্ভু-বাহন বৃষ,
উৎক্ষেপি’ তার শৃঙ্গে পঙ্ক খেলিছে অম্বরীষ।
মুল শ্লোক
৪৯
হিত্বা হালামভিমতরসাং রেবতীলোচনাঙ্কাং
বন্ধুপ্রীত্যা সমরবিমুখো লাঙ্গলী যাঃ সিষেবে
কৃত্বা তাসামভিগমমপাং সৌম্য সারস্বতীনাং
অন্তঃশুদ্ধস্ত্বমপি ভবিতা বর্ণমাত্রেণ কৃষ্ণঃ
৫০
তস্মাদ্ গচ্ছেরনুকনখলং শৈলরাজাবতীর্ণাং
জহ্নোঃ কন্যাং সগরতনযস্বর্গসোপানপঙ্ক্তিম্
গৌরীবক্ত্রভ্রুকুটিরচনাং যা বিহস্যেব ফেনৈঃ
শংভোঃ কেশগ্রহণমকরোদিন্দুলগ্নোর্মিহস্তা
৫১
তস্যাঃ পাতুং সুরগজ ইব ব্যোম্নি পূর্বার্ধলম্বী
ত্বং চেদচ্ছস্ফটিকবিশদং তর্কযেস্তির্যগম্ভঃ
সংসর্পন্ত্যা সপদি ভবতঃ স্রোতসিছাযযাসৌ
স্যাদস্থানোপগতযমুনাসঙ্গমেবাভিরামা
৫২
আসীনানাং সুরভিতশিলং নাভিগন্ধৈর্মৃগাণাং
তস্যা এব প্রভবমচলং প্রাপ্য গৌরং তুষারৈঃ
বক্ষ্যস্যধ্বশ্রমবিনযনে তস্য শৃঙ্গে নিষণ্ণঃ
শোভাং শুভ্রত্রিনযনবৃষোত্খাতপঙ্কোপমেযাম্

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s