আফিস এর বসকে না বলতে পারলাম না

রেহানা আমার অফিসের HR এ নতুন যোগ দিয়েছে| ইন্টারভিউতেই ওকে আমার চোখে পরেছিলো|বেশ স্মার্ট ও চটপটে| চোখে মুখে সপ্রথিব ভাব| ইংলিশ মিডিয়ামে পড়ালেখা করেছে| দেখতেও ভালো – টানা টানা বড় চোখ আর পুরু ঠোঁট| সবথেকে আকর্ষনীয় ওর ভরাট বুক আর নিতম্ব| মোটা বা থলথলে কোনো ভাব নাই – কিন্তু বেশ সুঠাম| চোখ এড়ানোর কোনো উপায় নেই| কাপড় চোপড়ের ব্যাপারে খুব ফ্যাশান সচতন| উগ্রতা নেই কিন্ত একটা সাবলীল যৌনতা ওকে ঘিরে থাকে| সব সময় স্লীভেলেস কামিজ পরে কিন্তু সস্তা মনে হয় না ওকে- নিজের যৌনতা সম্বন্ধে ওর প্রচন্ড আত্মবিশ্বাস| বয়স ২২ অবিবাহিতা| কাজে যোগ দেয়ার কয়েক দিনের মধ্যে সবাইকে জানিয়ে দিয়েছে যে ওর বয়ফ্রেন্ড আছে| মনে মনে ভেবেছি – লাকি বাস্টার্ড|
যাই হোক – কাজের কারণে রেহানাকে আমার রুমে প্রায় আসতে হয়| আমার আলাদা রুম কাঁচের দরজা দেয়া| সময়ের সাথে সাথে ও বেশ ওপেন আর ফ্রেন্ডলি হয়ে গিয়েছিলো| পলিসি নিয়ে আমাদের অনেক সময় লম্বা সময় কাটাতে হয় আমার রুমে| প্রথম প্রথম বেশ প্রফেশনাল একটা পরিবেশ ছিলো| কিন্তু ধীরে ধীরে আমাদের সম্পর্ক বেশ সহজ হয়ে আসলো| ব্যক্তিগত কথা মাঝে মাঝে আমরা আলোচনা করতাম| বেশির ভাগ কথা হত ওর ভবিষ্যত প্ল্যান নিয়ে| ও কখনো ওরনা বুকের ওপর রাখতো না – গলায় পেঁচিয়ে পিঠের উপর ফেলে রাথত| আমার চোখ প্রায়ই লুকিয়ে চলে যেত ওর উদ্ধত আর সুডৌল স্তনের ওপর| আমি নিশ্চিত ও এটা ভালো করেই জানে কিন্ত কখনো আমাকে বুঝতে দেয়নি|

সেদিন খেয়াল করলাম ওর মনটা বেশ খারাপ| পরনে কালো কামিজ আর সাদা সেলোয়ার| কামিজের গলাটা একটু বেশি কাটা| যথারীতি ওরনা বুকে নাই| আমার লোলুপ চোখ ওর বুকের গভীর খাদে আটকে আছে| ভাগ্য ভালো মন খারাপ বলে চোখ নীচে – আমি যে অপলক ভাবে ওর দুধ আর দুধের গহ্বর চুক চুক করে চাটছি তা ও জানতে পারলো না| নেশায় পেয়ে গেলো আমাকে যখন দেখলাম ও কালো laceএর ব্রা পরেছে| laceএর ফাঁকে ফাঁকে ওর ফর্সা স্তন দেখে আমার পেনিস খাড়া হতে শুরু করেছে|ওর কথায় হঠাৎ সম্বিত ফিরে পেলাম –
‘আমার মনে হয় চাকরি ছাড়তে হবে|’
আমি ভীষন চমকে উঠলাম – ‘কেন?’
‘বাসায় ফিরতে অনেক দেরি হয়| রাসেল (ওর boyfriend) প্রত্যেক দিন ঘ্যানর ঘ্যানর করে| আর ভালো লাগে না|’
‘তোমার বাবা মা কিছু না বললে ওর কী?’ কথায় আমার রাগ যেনো উপচে পরলো|
ও আমার দিকে তাকালো – কিছু বুঝলো হয়তো| ‘না, আগে আমি ওর সাথে দেখা করতাম ওর কাজের পরে| কখনো কখনো লান্চে| এখন আর আমাকে পায় না তাই মহা বিরক্ত|’
‘পাওয়া না পাওয়ার ব্যাপার আসছে কেন? তোমরা তো আর married না?’ চরম বিরক্তি আমার কথায়|
ওর চেহারা থেকে আস্তে আস্তে যেনো বিষাদের ছায়া কেটে যাচ্ছে – বুঝলাম ও আমার আচরন উপভোগ করছে| ওকে নিয়ে আমার এই possessiveness ওর মনকে ভালো করে তুলছে|
‘তাতে কী? married না হলে বুঝি ছেলে মেয়ে একসাথে সময় কাটাতে পারে না?’ চোখে মুখে দুষ্টুমি ওর|
ভুলে গেছি আজকে perfermonce evaluation নিয়ে পলিসি ঠিক করার কথা| রীতিমতো রেগে গিয়ে বললাম – ‘না আমরা এসব ফালতু কাজে সময় নষ্ট করতাম না|’
আমার যত রাগ বারছে দেখলাম ওর ততো যেনো মজা বারছে| ‘আপনি কী goody two shoes ছিলেন নাকি? আচ্ছা আপনার বিয়ে কী arranged? বিয়ের আগে আপনারা … মানে …’ বলে আমার দিকে ঠোঁট কামড়ে তাকালো|

রাগের চোটে এতক্ষণে আমার ডান্ডা নেতিয়ে ছিলো| ওর ঠোঁট কামড়ানো আর চোখের sexy চাহনি আমাকে আবার পাগল করে তুললো| মাথায় শয়তানি বুদ্ধি খেললো|
‘আমার arranged marriage. বিয়ের আগে বৌকে দেখেছি একবার – তাও ওদের বাসায় ঘর ভর্তি মানুষের মধ্যে|’
‘Wow! আমি ভাবতেই পারি না যাকে বিয়ে করবো তার সম্মন্ধে কিছুই জানবো না বিয়ের আগে|’ ভর্দ্সনার ভঙ্গিতে বললো|
‘জানবো না কেন? অনেক বার ফোনে কথা হয়েছে ওর সাথে| আমরা সব কিছু জানতাম একে অপরের|’
‘ফোনে কী সবকিছু জানা যায়?’ “সবকিছু” বলার সময় ওর চাহনিতে মাদকতা| আমর তলপেটে চীন চীন যন্ত্রণা| অন্ডকোষ আর পেনিসে শিহরণ| কেঁপে কেঁপে উঠছে পেনিসের মুন্ডুটা| অল্প pre-cum বের হয়ে জাঙ্গিয়ার সামনের কিছুটা ভিজে গেলো| ডান্ডা খাড়া হয়ে প্যান্ট ছিড়ে বের হয়ে আসতে চাচ্ছে| বাম হাতের কনুই চেয়ারের হাতলে রেখে হাথ রাখলাম পেনিসের উপর| রেহানার ঠোঁটে আমর দৃষ্টি – আর এত কাছে বসে আমি আমার লিঙ্গ ধরে আছি| ভাবতে আমার সারা শরীরে কাঁপন খেলে গেলো|
‘কী বললেন না তো? ফোনে কী কথা হত আপনাদের?’
‘সেটা তোমার সামনে বলা যাবে না|’ বেপরোয়া হয়ে বললাম| ওর গাল একটু লাল হলো| আর বুকের পিন্ড দুটা উঠানামা করতে থাকলো|
‘আমি তো আর খুকী না| তা ছাড়া রাসেল টা বড্ড ফাজিল|’ বলে আবার সেই মদির চাহনি| জিভের ডগা দিয়ে নিচের ঠোঁটটা একটু চেটে নিলো| কল্পনায় আমার পেনিসের ছিদ্রে ওর ঠোঁটের ডগা| কোলের উপর পরে থাকা হাত দিয়ে পেনিস মাসাজ করতে লাগলাম টেবিলের আড়ালে|
‘তুমি এত লাজুক তা জানতাম না| anyway, i need to go.’ বলে ও দুই দুধের ঢেউ দুলিয়ে উঠে পরলো| যেতে যেতে ওর পাছার উপর স্থির হয়ে থাকলো আমার দৃষ্টি| কল্পনায় ওর পাছার মা

তুই কি আমার দুঃখ হবি – আনিসুল হক

তুই কি আমার দুঃখ হবি?
এই আমি এক উড়নচন্ডী আউলা বাউল
রুখো চুলে পথের ধুলো
চোখের নীচে কালো ছায়া।
সেইখানে তুই রাত বিরেতে স্পর্শ দিবি।
তুই কি আমার দুঃখ হবি?
তুই কি আমার শুষ্ক চোখে অশ্রু হবি?
মধ্যরাতে বেজে ওঠা টেলিফোনের ধ্বনি হবি?
তুই কি আমার খাঁ খাঁ দুপুর
নির্জনতা ভেঙে দিয়ে
ডাকপিয়নের নিষ্ঠ হাতে
ক্রমাগত নড়তে থাকা দরজাময় কড়া হবি?
একটি নীলাভ এনভেলাপে পুরে রাখা
কেমন যেন বিষাদ হবি।
তুই কি আমার শুন্য বুকে
দীর্ঘশ্বাসের বকুল হবি?
নরম হাতের ছোঁয়া হবি?
একটুখানি কষ্ট দিবি।
নিজের ঠোট কামড়ে ধরা রোদন হবি?
একটুখানি কষ্ট দিবি।
প্রতীক্ষার এই দীর্ঘ হলুদ বিকেল বেলায়
কথা দিয়েও না রাখা এক কথা হবি?
একটুখানি কষ্ট দিবি।
তুই কি একা আমার হবি?
তুই কি আমার একান্ত এক দুঃখ হবি?

দারুন একখান পোলা – আবুল মফিজ

বাংলাদেশের ছিপার ভেতর
কুষ্টিয়া জেলা ,
সেই জেলায় বাস করে
সেলিম নামের পোলা ।

নাদুস নুদুস চেহারা তার
নরম নরম গাল ,
দেখে যেন মনে হয়
আস্ত একটা মাল ।

পড়ালেখা নাই শুধু
জিম নিয়ে থাকে ,
সেই জন্যেই সবাই তাকে
মাসাকাদজা ডাকে ।

হাতে আছে নকিয়ার
শ্রেষ্ঠ এন্ড্রয়েড ,
বেলে নাকি সেটা আবার
সিঙ্গাপুরে মেইড ।

শারমিন নামক মালের সাথে
তার ভালোবাসা ,
ছ্যাঁকা খেয়ে মিটে গেলো
তার সব আশা ।

কাজে কর্মে যেমন তেমন
শুক্রানু খুব স্ট্রং ,
তার পরেও করে সে
হিজড়ার মতো ডং ।

[বিঃদ্রঃ সেলিম ভাই সেই লোক আমাদের সাথে UCC তে কোচিং করে]

এলো বনান্তে পাগল বসন্ত – কাজী নজরুল ইসলাম

এলো বনান্তে পাগল বসন্ত।
বনে বনে মনে মনে রং সে ছড়ায় রে,চঞ্চল তরুণ দুরন্ত।
বাঁশীতে বাজায় সে বিধুর পরজ বসন্তের সুর,
পান্ডু-কপোলে জাগে রং নব অনুরাগে
রাঙা হল ধূসর দিগন্ত।।
কিশলয়ে-পর্ণে অশান্ত ওড়ে তা’র অঞ্চল প্রাস্ত।
পলাশ-কলিতে তা’র ফুল-ধনু লঘু-ভার,
ফুলে ফুলে হাসি অফুরন্ত।
এলো মেলো দখিনা মলয় রে প্রলাপ বকিছে বনময় রে।
অকারণ মন মাঝে বিরহের বেণু বাজে।
জেগে ওঠে বেদনা ঘুমন্ত।।

রমজানের ঐ রোজার শেষে – কাজী নজরুল ইসলাম

ও মন রমজানের ঐ রোজার শেষে এলো খুশির ঈদ
তুই আপনাকে আজ বিলিয়ে দে , শোন আসমানী তাগিদ।

তোর সোনা-দানা, বালাখানা সব রাহেলিল্লাহ
দে যাকাত , মুর্দা মুসলিমের আজ ভাঙাইতে নিঁদ
ও মন রমজানের ঐ রোজার শেষে এলো খুশির ঈদ।

আজ পড়বি ঈদের নামাজ রে মন সেই সে ঈদগাহে
যে ময়দানে সব গাজী মুসলিম হয়েছে শহীদ।

ও মন রমজানের ঐ রোজার শেষে এলো খুশির ঈদ।

আজ ভুলে যা তোর দোস্ত-দুশমণ, হাত মেলাও হাতে,
তোর প্রেম দিয়ে কর বিশ্ব নিখিল ইসলামে মুরিদ।

ও মন রমজানের ঐ রোজার শেষে এলো খুশির ঈদ।

যারা জীবন ভরে রাখছে রোজা, নিত্যউপবাসী
সেই গরীব ইয়াতীম মিসকিনে দে যা কিছু মুফিদ
ও মন রমজানের ঐ রোজার শেষে এলো খুশির ঈদ
আপনাকে আজ বিলিয়ে দে শোন আসমানীতাগিদ।

ঢাল হৃদয়ের তশতরীতে শিরনি তৌহিদের,
তোর দাওয়াত কবুল করবেন হজরত হয়মনে উম্মীদ।।

ও মন রমজানের ঐ রোজার শেষে এলো খুশির ঈদ
আপনাকে আজ বিলিয়ে দে শোন আসমানীতাগিদ।

হে পার্থসারথী! বাজাও বাজাও পাঞ্চজন্য শঙ্খ – কাজী নজরুল ইসলাম

হে পার্থসারথী! বাজাও বাজাও পাঞ্চজন্য শঙ্খ
চিত্তের অবসাদ দূর কর কর দূর
ভয়-ভীত জনে কর হে নিঃশঙ্ক।।
ধনুকে টংকার হানো হানো,
গীতার মন্ত্রে জীবন দানো;
ভোলাও ভোলাও মৃত্যু-আতংক।।
মৃত্যু জীবনের শেষ নহে নহে-
শোনাও শোনাও-অনন্ত কাল ধরি’
অনন্ত জীবন প্রবাহ বহে।
দুর্দম দুরন্ত যৌবন-চঞ্চল
ছাড়িয়া আসুক মা’র স্নেহ-অঞ্চল;
বীর সন্তানদল করুক সুশোভিত মাতৃ-অঙ্ক।।

আমি চিনি গো চিনি তোমারে – রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর

আমি চিনি গো চিনি তোমারে
ওগো বিদেশিনী ।
তুমি থাক সিন্ধুপারে
ওগো বিদেশিনী ।।

তোমায় দেখেছি শারদপ্রাতে,
তোমায় দেখেছি মাধবী রাতে,
তোমায় দেখেছি হৃদি-মাঝারে,
ওগো বিদেশিনী ।

আমি আকাশে পাতিয়া কান
শুনেছি শুনেছি তোমারি গান,
আমি তোমারে সঁপেছি প্রাণ
ওগো বিদেশিনী ।

ভুবন ভ্রমিয়া শেষে
আমি এসেছি নূতন দেশে,
আমি অতিথি তোমারি দ্বারে
ওগো বিদেশিনী ।।